DBC News
ভোটের ফল পাল্টে গেল ঢাবির ভিসি প্যানেল নির্বাচনে

ভোটের ফল পাল্টে গেল ঢাবির ভিসি প্যানেল নির্বাচনে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য নিয়োগের লক্ষ্যে গতকাল বুধবার সিনেট অধিবেশনে তিনজনের প্যানেল চূড়ান্ত হয়। এই প্যানেলে বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ এবং বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল চূড়ান্ত মনোনয়ন পেয়েছেন।

কিন্তু, ভিসি প্যানেল নির্বাচনে কোনো নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করেই প্যানেল চূড়ান্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে ক্ষোভ জানিয়েছেন বিশেষ অধিবেশনে যোগ দেয়া সিনেট সদস্য ও রেজিস্টার্ড গ্রাজুয়েটরা।

উপাচার্য প্যানেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ পেয়েছেন ৪২ ভোট, উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান ৩৬ ভোট ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক এস এম মাকসুদ কামাল ৩০ ভোট পেয়ে মনোনীত হন।

এ বিষয়ে নীল দলের যুগ্ম আহ্বায়ক ড. হুমায়ুন কবির বলেন, ‘নীল দলের সভায় ভিসি প্যানেল নিয়ে ভোটাভুটিতে উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ সর্বোচ্চ ৪২ ভোট, বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান ৩৬ ভোট এবং অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল ৩০ ভোট পান। সভায় প্রাপ্ত ভোটের ক্রমানুসারে ড. মুহাম্মদ সামাদকে এক নম্বরে রাখার সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু, সিনেটে উপস্থাপনের সময় সভায় ড. মুহাম্মদ সামাদের পরিবর্তে ড. মো. আখতারুজ্জামানকে এক নম্বরে রাখা হয়। যা নীল দলের আদর্শের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।‘

তিনি আরও বলেন, ‘ক্রমধারা পাল্টে দেয়ার বিষয়ে নীল দলের জ্যেষ্ঠ সদস্য ড. আব্দুল আজিজ কথা বলতে চাইলে উপাচার্য তাঁকে কথা বলা সুযোগ না দিয়ে জাতীয় সংগীত বাজিয়ে সিনেট অধিবেশন শেষ করে দেন।‘

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নীল, সাদা ও গোলাপী দল থেকে সর্বোচ্চ ভোট পাওয়া তিনি সদস্যের একটি প্যানেল বাছাই করা হয়। এরপর সিনেট অধিবেশন ডেকে সিনেট সদস্য ও রেজিস্টার্ড গ্রাজুয়েটরা ভোট দিয়ে একটি প্য্যানেল চূড়ান্ত করেন। সবচেয়ে বেশি ভোট পাওয়া শিক্ষককে উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ দেন আচার্য।

২০১৭ সালে ১০৫ ভোটারের সবার অনুপস্থিতিতে ভিসি প্যানেল ঠিক করায় একটি রিটের প্রেক্ষিতে তখনকার ভিসি প্যানেল অবৈধ ঘোষণা করা হলে ড. আখতারুজ্জামানকে সাময়িক উপাচার্যের দায়িত্ব দেন আচার্য। আর যত দ্রুত সম্ভব বৈধভাবে উপাচার্য প্যানেল নির্বাচনের নির্দেশ দেন আচার্য।

নির্বাচনের প্রস্তুতির নামে এরইমধ্যে দুই বছর কাটিয়েছেন ড. আখতারুজ্জামান। এবারে ভিসি প্যানেল নির্বাচনে শুধুমাত্র নীল দলের প্যানেল ছিল। সেই প্যানেলে সর্বোচ্চ ভোট পান ড. মুহাম্মদ সামাদ, দ্বিতীয় অবস্থানে ছিলেন ড. আখতারুজামান। আর ভোটে তৃতীয় হন ড. মাকসুদ কামাল।

প্যানেলে সর্বোচ্চ ভোট পাওয়া ড. মুহাম্মদ সামাদের নাম ঘোষণা করার কথা থাকলেও নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে ড. আখতারুজ্জামানের নাম ঘোষণা করায় নির্বাচকরা হতবাক হয়ে যান।

এ বিষয়ে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি ডা. এম ইকবাল আর্সলান বলেন, ‘এটা নিয়ে মাননীয় উপাচার্য আলোচনার কোনো সুযোগই দেননি। যেহেতু আলোচনার কোনো সুযোগই তিনি দেননি সেহেতু এটাকে গণতান্ত্রিক পদ্ধতি বলা যায় না।‘

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. এমরান কবির চৌধুরী আক্ষেপ করে বলেন, ‘আমরা যে কোনো বিষয়ে উদাহরণ দেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে। যখনই কোনো ক্রান্তিকালীন সময় আসে আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে উদাহরণ হিসেবে নেয়া হয়। কিন্তু, আজ আমি ফিরে গিয়ে আমার বিশ্ববিদ্যালয়কে কি উদাহরণ দেব।‘

তবে, এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বর্তমান ভিসি ড. আখতারুজ্জামান। তিনি বলেন সব নিয়মনীতি মেনেই উপাচার্য প্যানেল চূড়ান্ত করা হয়েছে।

আরও পড়ুন

সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক বেলা খাবার নিশ্চিতের লক্ষ্যে 'জাতীয় স্কুল মিল নীতি' অনুমোদন

পর্যায়ক্রমে ২০২৩ সালের মধ্যে দেশের সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের এক বেলা খাবার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ‘জাতীয় স্কুল মিল নীতি ২০১৯’ এর খসড়...

ট্রেনে মাদ্রাসাছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার

রাজধানীর কমলাপুরে একটি ট্রেনের ভেতর থেকে এক মাদ্রাসাছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।   বিস্তারিত আসছে...

সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক বেলা খাবার নিশ্চিতের লক্ষ্যে 'জাতীয় স্কুল মিল নীতি' অনুমোদন

পর্যায়ক্রমে ২০২৩ সালের মধ্যে দেশের সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের এক বেলা খাবার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ‘জাতীয় স্কুল মিল নীতি ২০১৯’ এর খসড়...

‘আমাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হয়েছে’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক দাবি করেছেন, ভিপি হবার পর পাঁচবার তাকে হামলা করেছে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা। এজন্য...