DBC News
'নির্বাচনের এক সপ্তাহ আগে সেনাবাহিনী নামানো হবে'

'নির্বাচনের এক সপ্তাহ আগে সেনাবাহিনী নামানো হবে'

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ৭ থেকে ১০ দিন আগে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। নির্বাচন সামনে রেখে বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে চট্টগ্রাম, সিলেট ও বরিশাল বিভাগের সহকারী রিটার্নিং অফিসারদের ব্রিফিঙ্গে তিনি এ কথা বলেন।

ইসি সচিব বলেন, ‘নির্বাচনের এক সপ্তাহ বা দশ দিন আগে সেনাবাহিনী ও বিজিবি মোতায়েন করা হবে। তাদের জন্য থাকার ব্যবস্থা থাকতে হবে, সে অনুযায়ী আপনাদের প্রস্তুতি নিতে হবে।’

তিনি বলেন, 'নির্বাচন চলাকালে আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে বেসামরিক প্রশাসনকে যথা-প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদানের 'এইড টু দ্য সিভিল পাওয়ার' বিধানের অধীনে সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েন থাকবে।'

তিনি বলেন, 'সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষভাবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সম্পন্ন করতে নির্বাচন কমিশন বদ্ধ পরিকর। তাই নির্বাচনের সময় যেন কোনও বিশৃঙ্খলা না হয়, সে জন্য নির্বাচনের আগে, দেশের বিভিন্ন এলাকায় সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হবে।' সেনাবাহিনীর সঙ্গে বিজিবি'ও এ সময় সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবে বলেও জানান তিনি।

নির্বাচনের সময় সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তাদের সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করার আহ্বান জানিয়ে ইসি সচিব বলেন, 'দায়িত্ব পালনে কেউ অবহেলা করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।'

এ সময় নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেন, 'জনগণের দেয়া ভোটের পরিবর্তে জবরদখল করে যারা ক্ষমতায় আসতে চায় তাদেরকে আইনানুগভাবে প্রতিহত করা হবে।'

তিনি বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেশের ভাবমূর্তি প্রতিফলিত হয়। তাই কেউ নির্বাচন নস্যাৎ করে, কমিশনের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে চাইলে, তাদের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন মাহবুব তালুকদার।

রাজনৈতিক দলগুলোর এবারের সংলাপের পর, আসছে নির্বাচনে সুস্থ পরিবেশ থাকবে বলেও আশা প্রকাশ করেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সংসদ নির্বাচনে বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে সেনা মোতায়েনের দাবি জানিয়ে এলেও নির্বাচন কমিশন তাতে সাড়া দেয়নি।

গত ৮ই নভেম্বর প্রথম দফা তফসিল ঘোষণার দিন জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা বলেন, 'এবার সেনা মোতায়েন হবে আগে মতোই। অর্থাৎ সেনাবাহিনীর বিচারিক ক্ষমতা থাকবে না।' তিনি বলেন, ‘নির্বাচন চলাকালে আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে বেসামরিক প্রশাসঙ্কে যথা-প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদানের ‘এইড টু দ্য সিভিল পাওয়ার’ বিধানের অধীনে সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েন থাকবে।’

বাংলাদেশে এর আগের প্রতিটি জাতীয় নির্বাচনেই সেনা মোতায়েন হয়েছে। ভোটের মাঠে সেনাসদস্যরা বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তা করতেই নিয়োজিত থাকেন।
২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারি এবং ২০০৮ সালের ২৯শে ডিসেম্বরের সংসদ নির্বাচনে সশস্ত্র বাহিনীর প্রায় ৫০ হাজার সদস্যকে মোতায়েন করা হয়েছিল। 

 

আরও পড়ুন

গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দুই সন্তানসহ স্বামী-স্ত্রী নিহত

রান্নার সময় গ্যস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দুই সন্তানসহ স্বামী-স্ত্রী নিহত হয়েছেন। গাজীপুরের ইসলামপুর রোডে এ দুর্ঘটনা ঘটে। বুধবার ইফতারের পর রান্না করার গ্যাস লা...

'ব্যর্থ হলে সিএনএস কোম্পানির সঙ্গে রেলের কোনো সম্পর্ক থাকবে না'

অব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়েই শুরু হয়েছে ঈদ উপলক্ষ্যে ট্রেনের আগাম টিকিট বিক্রি। আর অগ্রিম টিকিট বিক্রির প্রথম দিনেই যাত্রীদের অনলাইনে টিকিট কিনতে না পারার ঘটনা...

বগুড়া-৬ আসনের প্রার্থী হচ্ছেন খালেদা জিয়া!

বগুড়া-৬ আসনের উপনির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। এছাড়া দলের স্থানীয় চার নেতাকেও মনোনয়নপত্র নিতে বলেছে বিএনপি। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে নয়া...

ধান কেটে দেবে ছাত্রলীগ

ধানের দাম কম হওয়ার কারণে দেশের অনেক জায়গার কৃষকরা ধান কাটছেন না। ন্যায্য দামের দাবিতে ধানখেতে আগুনও ধরিয়ে দেয়ার মত ঘটনাও ঘটেছে। বেরিয়েছে কৃষকের আত্মহত্যার খবরও।...