DBC News
'রোহিঙ্গা ইস্যুতে কঠোর অবস্থানে সরকার'

'রোহিঙ্গা ইস্যুতে কঠোর অবস্থানে সরকার'

মিয়ানমারের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখতে চায় বাংলাদেশ। তবে মাদক ও রোহিঙ্গা ইস্যুতে সরকার কঠোর অবস্থানে রয়েছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। 

আজ মঙ্গলবার সকালে, মন্ত্রাণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, রোহিঙ্গা নারীদের নিরাপত্তা, সুস্বাস্থ্য, নারী পাচার এবং যৌন হয়রানী প্রতিরোধে বাংলাদেশ সরকার আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে। এ সময় তিনি রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক চাপ অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে সুনির্দিষ্টভাবে দোষী সাব্যস্ত করার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের কাছে যেসব তথ্য-উপাত্ত চাওয়া হয়েছে, সেসব সরবরাহ থেকে শুরু করে কোথাও কিছু বাদ রাখিনি গত একটি বছরে। কিন্তু তারপরও এই রাষ্ট্রের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখার জন্য আমরা বিশেষ করে মাদক সম্পর্কিত অপরাধ, বিশেষ করে সীমান্ত সন্ত্রাসবাদ এবং অবৈধ যাতায়াত, এছাড়া নদী পথে বাণিজ্য বৃদ্ধির জন্য আমরা গত দুই বছরে মিয়ানমারের সঙ্গে একাধিক চুক্তিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি।’

উল্লেখ্য, গত বছরের ২৫ আগস্ট রাখাইনে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর পূর্ব-পরিকল্পিত ও কাঠামোবদ্ধ সহিংসতা জোরালো হয়। হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধারার সহিংসতা ও নিপীড়ন থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর প্রায় ৭ লাখ মানুষ। আর তার আগে কয়েক দশক ধরে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে তিন লাখ রোহিঙ্গা। সব মিলে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গার সংখ্যা ১০ লাখে দাঁড়িয়েছে। জানুয়ারিতে সম্পাদিত ঢাকা-নেপিদো প্রত্যাবাসন চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের রাখাইনে ফিরিয়ে নেওয়া শুরু হওয়ার কথা থাকলেও তা এখনও বাস্তবায়িত হয়নি। তাছাড়া, জাতিসংঘ, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন সংস্থা ধারাবাহিকভাবে বলে আসছে, রাখাইন এখনও রোহিঙ্গাদের জন্য নিরাপদ নয়।