DBC News
জামিন পেলেন না শহিদুল অালম

জামিন পেলেন না শহিদুল অালম

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যে ‘উসকানিমূলক মিথ্যা’ তথ্য প্রচারের অভিযোগে আইসিটি আইনের মামলায় আলোকচিত্রী শহিদুল আলমের জামিন আবেদন নাকচ করে দিয়েছে ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালত। ঢাকার মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েস মঙ্গলবার শুনানি শেষে এই আদেশ দেন।

শহিদুলের পক্ষে আদালতে শুনানি করেন আইনজীবী সারা হোসেন ও এহসানুল হক সমাজি। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন এ আদালতের পিপি আবদুল্লাহ আবু। দৃক গ্যালারি ও পাঠশালা সাউথ এশিয়ান মিডিয়া ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা শহিদুলের আইনজীবীরা জামিনের জন্য হাই কোর্টেও যান। কিন্তু উচ্চ অাদালত তাঁকে জামিন না দিয়ে জজ আদালতেই বিষয়টি নিষ্পত্তির নির্দেশ দেন। সে অনুযায়ী মঙ্গলবার মহানগর দায়রা জজ আদালতে শুনানি হলেও, জামিন মেলেনি শহিদুলের।

জামিন শুনানির সময় শহিদুল আলমের স্ত্রী রেহনুমা আহমেদসহ তাঁর স্বজনেরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষের কৌসুলি আবদুল্লাহ আবু বলেন, ‘শহিদুল আলম যে বক্তব্য দিয়েছেন তাতে তাঁর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হওয়া উচিত। নির্বাচিত সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক বক্তব্য দিয়েছেন। জঘন্য অপরাধ করেছেন শহিদুল আলম।’

শহিদুল আলমের জামিনের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন আইনজীবী সারা হোসেন, এহসানুল হক ও জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। আদালতে ছিলেন, আইনজীবী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান। শহিদুল আলমের বিরুদ্ধে মিথ্যা, ভিত্তিহীন সাজানো মামলা দেয়া হয়েছে বলে আদালতকে জানান তাঁর আইনজীবী এহসানুল হক। তিনি বলেন, 'বিশ্বের বরেণ্য ব্যক্তিরা শহিদুল আলমের মুক্তি চেয়েছেন। জামিন দিলে তিনি পলাতক হবেন না কিংবা সাক্ষীদের কোনোভাবে প্রভাবিত করবেন না।'

আইনজীবী সারা হোসেন বলেন, 'শহিদুল আলম একজন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন আলোকচিত্রী। তিনি এমন ছবি তুলেছেন যার জন্য বাংলাদেশ অনেক সুনাম অর্জন করেছে। এক মাসের বেশি সময় তাঁকে আটকে রাখা হয়েছে। তাঁকে জামিন দিলে মামলার কোনো ব্যাঘাত ঘটবে না। তিনি সমাজের একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তি।'

জামিনের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া বলেন, 'একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে যে কেউ সমালোচনা করতে পারেন। এটা তাঁর সাংবিধানিক অধিকার। উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে আলোকচিত্রী শহিদুল আলমের জামিন আবেদন নাকচ করে দেন আদালত।

পরে ব্যারিস্টার সারা হোসেন সাংবাদিকদের জানান, 'মহানগর দায়রা আদালতে শহিদুল আলমের জামিন নাকচ হওয়ায় এখন উচ্চ আদালতে জামিন চাওয়া হবে।'

এর আগে শহিদুল আলম হাইকোর্টে জামিন আবেদন করলে ৪ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চের এক বিচারপতি বিব্রত বোধ করেন। বিচারপতি মো. রুহুল কুদ্দুস ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চের একজন বিচারপতি বিব্রত বোধ করেছেন জানিয়ে আদালত বিষয়টি প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠানোর আদেশ দেন। এরপর প্রধান বিচারপতি এই বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠান। সেই ধারাবাহিকতায় গতকাল শুনানি হয়।

'অধিকার আন্দোলনের' সঙ্গে যুক্ত শহিদুল অগাস্টের শুরুতে নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যে জিগাতলা এলাকায় সংঘর্ষের বিষয়ে কথা বলতে বেশ কয়েকবার ফেইসবুক লাইভে আসেন। ওই আন্দোলনের বিষয়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম 'আল জাজিরাকে' দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি সরকারের সমালোচনাও করেন।

এরপর ৫ই অগাস্ট রাতে শহিদুল আলমকে তার ধানমণ্ডির বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। মামলা করে পরদিন তাকে আদালতে হাজির করা হলে বিচারক সাত দিনের রিমান্ডে নিয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন।

তথ্য-প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় করা এ মামলায় ‘কল্পনাপ্রসূত তথ্যের’ মাধ্যমে বিভিন্ন শ্রেণির মধ্যে ‘মিথ্যা প্রচার’ চালানো, উসকানিমূলক তথ্য উপস্থাপন, সরকারকে ‘প্রশ্নবিদ্ধ ও অকার্যকর’ হিসেবে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে উপস্থাপন, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির ‘অবনতি ঘটিয়ে’ জনমনে ‘ভীতি ও সন্ত্রাস ছড়িয়ে’ দেয়ার ষড়যন্ত্র এবং তা বাস্তবায়নে ইলেকট্রনিক বিন্যাসে ‘অপপ্রচারের’ অভিযোগ আনা হয়।

আরও পড়ুন

কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন আলোকচিত্রী শহিদুল আলম

১০৭ দিন কারাভোগের পর মুক্তি পেয়েছেন আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলম। মঙ্গলবার রাত পোনে ৯টার দিকে কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পান ড. শহিদুল আ...

'বর্ণচোরাদের ব্যালটের মাধ্যমে প্রত্যাখান করবে জনগণ'

যাঁরা এখনো মুজিব কোট পড়েন, বঙ্গবন্ধুর কথা বলেন, তাঁরা বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে এবং খুনিদের পৃষ্ঠপোষকদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন। এর বিচার ৩০শে ডিসেম্বর দেশের জনগণ ত...

কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন আলোকচিত্রী শহিদুল আলম

১০৭ দিন কারাভোগের পর মুক্তি পেয়েছেন আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলম। মঙ্গলবার রাত পোনে ৯টার দিকে কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পান ড. শহিদুল আ...

নয়াপল্টনে সংঘর্ষের ঘটনায় আটক ৭৮ জন

নয়াপল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সংঘর্ষের ঘটনায় ৭৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এরমধ্যে ৬৫ জনকে সংঘর্ষের দিনই গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর গ্রেপ্তার করা হয়...