DBC News
গাজীপুরে হত্যা মামলায় সাতজনের মৃত্যুদণ্ড

গাজীপুরে হত্যা মামলায় সাতজনের মৃত্যুদণ্ড

গাজীপুরে ব্যবসায়ী মিলন ভূইয়া হত্যা মামলায় সাতজনকে ফাঁসির দণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া একজনের পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও অন্য দু'জনকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

সোমবার বেলা পোনে ১১টায় গাজীপুরের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক এ কে এম এনামুল হক এ রায় দেন।

এই আদালতের পিপি হারেছ উদ্দিন আহমেদ জানান, '২০১১ সালের ২৬শে ফেব্রুয়ারি ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানের গেটের কাছে রাজেন্দ্রপুর এলাকায় মিলন ভূইয়াকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।'

মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত সাত আসামি হলেন, গাজীপুরের জয়দেবপুর থানার গজারিয়াপাড়া এলাকার রাজীব হোসেন ওরফে রাজু ও মো. কাইয়ুম, কাপাসিয়া থানার ধরপাড়া এলাকার মো. ফারুক হোসেন, নলগাঁও বুরুজপাড়া এলাকার মো. শফিকুল ইসলাম ওরফে পারভেজ, কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া থানার বুরুদিয়া এলাকার মো. রাজীব হোসেন, জামালপুরের ইসলামপুর থানার পূর্ব বালিয়াদহ গ্রামের মো. আলী হোসেন ওরফে হোসেন আলী, কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীর মোহাম্মদ আলী ওরফে ছোট আলী।

মৃত্যুদণ্ড দেয়ার পাশাপাশি তাদের আরেকটি ধারায় ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। এছাড়া তাদের দশ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ডও দেয়া হয়েছে।

রায় ঘোষণার সময় দণ্ডিত সাতজনের মধ্যে চারজন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। তারা হলেন, রাজীব হোসেন ওরফে রাজু, মো. কাইয়ুম, মো. শফিকুল ইসলাম ওরফে পারভেজ, মোহাম্মদ আলী ওরফে ছোট আলী। বাকীরা পলাতক রয়েছেন।

মামলার অভিযোগপত্রভুক্ত আসামিদের মধ্যে কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর থানার মাসুদ ওরফে মামা মাসুদকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

আর অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় অন্য দুই আসামি ময়মনসিংহের ত্রিশালের বকশিপাড়া এলাকার এনামুল হক এবং কিশোরগঞ্জের কটিয়াদি থানার আছমিতা এলাকার শামসুল হককে খালাস দিয়েছেন আদালত।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, গাজীপুরের পূর্ব চান্দনা এলাকার ব্যবসায়ী মিলন ভূইয়া ঠিকাদারী কাজে ব্যবহৃত বাঁশ ও কাঠ ভাড়া দিতেন। ব্যবসার পাওনা টাকা আদায় করাকে কেন্দ্র করে আসামিদের তার সঙ্গে বিরোধ হয়। ঘটনার দিন ২০১১ সালের ২৬শে ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় গাজীপুরের ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানের সামনে আসামিরা মিলনের গতিরোধ করে এবং এলোপাতারি কুপিয়ে জখম করে। খবর পেয়ে মিলনের আত্মীয় স্বজনরা মিলনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় পরদিন মিলনের মামা আকতার হোসেন বাদী হয়ে গাজীপুরের জয়দেবপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে এ ঘটনার তদন্ত করে ১০ জনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। আদালত উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আজ এ রায় ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন

কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন আলোকচিত্রী শহিদুল আলম

১০৭ দিন কারাভোগের পর মুক্তি পেয়েছেন আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলম। মঙ্গলবার রাত পোনে ৯টার দিকে কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পান ড. শহিদুল আ...

'বর্ণচোরাদের ব্যালটের মাধ্যমে প্রত্যাখান করবে জনগণ'

যাঁরা এখনো মুজিব কোট পড়েন, বঙ্গবন্ধুর কথা বলেন, তাঁরা বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে এবং খুনিদের পৃষ্ঠপোষকদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন। এর বিচার ৩০শে ডিসেম্বর দেশের জনগণ ত...

কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন আলোকচিত্রী শহিদুল আলম

১০৭ দিন কারাভোগের পর মুক্তি পেয়েছেন আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলম। মঙ্গলবার রাত পোনে ৯টার দিকে কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পান ড. শহিদুল আ...

নয়াপল্টনে সংঘর্ষের ঘটনায় আটক ৭৮ জন

নয়াপল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সংঘর্ষের ঘটনায় ৭৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এরমধ্যে ৬৫ জনকে সংঘর্ষের দিনই গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর গ্রেপ্তার করা হয়...