DBC News
শিগগিরই ছাত্রলীগের পুর্ণাঙ্গ কমিটি হচ্ছে

শিগগিরই ছাত্রলীগের পুর্ণাঙ্গ কমিটি হচ্ছে

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আকার নিয়ে সংগঠনটির সভাপতি আর সাধারণ সম্পাদকের ভিন্নমত। সভাপতি চাইছেন কমিটির আকার ছোট করতে আর কমিটি বড় করার পক্ষে সাধারণ সম্পাদক। তবে দুই নেতাই জানিয়েছেন, চলতি মাসেই ঘোষণা করা হচ্ছে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় পূর্ণাঙ্গ কমিটি। 

ছাত্রলীগের ২৯ তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার আড়াই মাস পর গত ৩১শে জুলাই রেজোয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে সভাপতি ও গোলাম রাব্বানীকে সাধারণ সম্পাদক করে কেন্দ্রীয় কমিটি আর সঞ্জিত চন্দ্র দাসকে সভাপতি ও সাদ্দাম হোসাইনকে সাধারণ সম্পাদক করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়।

গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ছাত্রলীগ এর কেন্দ্রীয় কমিটি ৩০১ সদস্য বিশিষ্ট ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কমিটি ১০১ সদস্যের। নতুন কেন্দ্রীয় কমিটিতে পদ পেতে দৌড় ঝাঁপ চলছে, পদ প্রত্যাশীদের নিয়মতি আড্ডা ও মহড়া চলছে মধুর ক্যান্টিন ঘিরে। 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন জানান, 'আমরা অপরাজনীতি দ্বারা শিক্ষা ব্যবস্থার হেনস্তা দেখতে চাই না। আমাদের জাতীয় রাজনীতি এবং জনগণের কাছে দ্বায় রয়েছে। সে জায়গা থেকে আমরা চাই তরুণ সমাজ যেন সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়। সেজন্য আমরা চাই তরুণ সমাজ দেশরত্ন শেখ হাসিনাকে যেন প্রমাণ করতে পারে ছাত্রলীগ আজ নৈতিকভাবে দ্বায়বদ্ধ।'দ

জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে দ্রুত কেন্দ্রীয় কমিটি পুর্ণাঙ্গ করার জন্য কয়েক দিনের মধ্যে জীবন বৃত্তান্ত জমা দিতে বলা হবে জানান নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। তবে কমিটির আকার নিয়ে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে মতপার্থক্য স্পস্ট।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, যেহেতু সামনে জাতীয় নির্বাচন তাই আমাদের মূল লক্ষ্য সেদিকেই। আমরা এই মাসের মধ্যেই পুর্ণাঙ্গ কমিটি দেয়ার চেষ্টা করবো। ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রে কমিটির আকার কেমন হবে তা বলা আছে, তাই এই কমিটির আকার গঠনতন্ত্রের বাইরে যাবে না। 

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি রেজোয়ানুল হক চৌধুরী শোভন জানান, 'নির্বাচনের আগেই আমরা অবশ্যই পুর্ণাঙ্গ কমিটি দিবো। তবে কমিটির আকার সংক্ষিপ্ত করার চিন্তা ভাবনা আছে। এটা আমরা দেশরত্ন শেখ হাসিনার সাথে কথা বলেই ঠিক করবো। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কর্মীর সংখ্যা দিন দিন কমে যাচ্ছে। সবাই নেতার দিকে ধাবিত হচ্ছে। আমরা যেন সবাই ছাত্রলীগের কর্মী থেকে নিজ নিজ জায়গা থেকে দায়িত্ব পালন করতে পারি, তাই সংক্ষিপ্ত আকারেই কমিটি দেয়া হবে।'

সারাদেশে ১০৯টি সাংগঠনিক কমিটি থেকে যোগ্যদের প্রাধান্য দিয়ে নানা কর্মকান্ডে বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করার কথা ছাত্রলীগের নয়া নেতৃত্ব। অনুপ্রবেশকারী ও বিশৃংখলাকারীদের ব্যাপারে কঠোর অবস্থানের কথাও তারা তুলে ধরেন।