DBC News
দ. আফ্রিকায় আতংকে প্রবাসী বাংলাদেশিরা

দ. আফ্রিকায় আতংকে প্রবাসী বাংলাদেশিরা

দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গ শহরের সোয়েটো এলাকায় সম্প্রতি বিদেশি ভীতি বা জেনোফোবিয়া জনিত সংঘর্ষে ২ স্কুলছাত্রসহ ৪ কৃষ্ণাঙ্গ নিহত হয়। এছাড়া অন্তত পনেরো'শ বিদেশীর দোকান ভাংচুর ও লুটপাট করে স্থানীয় কৃষ্ণাঙ্গরা।

যার মধ্যে ৭ শ'রও বেশি দোকান বাংলাদেশী মালিকানাধীন। চলমান এই জেনোফোবিয়ার কারণে আতংকে আছেন ওই এলাকার প্রবাসীরা।  নিরাপত্তাজনিত কারণে আপাতত দোকানপাট বন্ধ রাখতে বলেছে পুলিশ। 

ভেজাল ও মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য বিক্রির অভিযোগে গত ২৯ ও ৩০ শে আগস্ট সোয়েটোয় বিদেশীদের দোকানে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট চালায় স্থানীয় কৃষ্ণাঙ্গরা। এ ঘটনার পর বিদেশীদের দোকান থেকে বের করে দেয়ার সময়সীমা বেঁধে দেয় 'সেভ এন্ড ক্লিন সাউথ আফ্রিকা' নামের একটি সংগঠন। এরপর থেকেই নিজ দোকানে ফিরতে পারছেন না আতংকিত ব্যবসায়ীরা। 

এ অবস্থায় নিরাপদে নিজ দোকানে ফিরে যেতে সোয়েটো ডিপলোফ পুলিশ স্টেশনে বাংলাদেশ দূতাবাস ও ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের মধ্যে মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা বলছেন, 'ব্যবসা বাণিজ্যে ভালো করছি বলে অনেকেই ঈর্ষান্বিত হয়ে সংঘর্ষে মদদ দিচ্ছে। কিন্তু আমরা শান্তিতে ও সৎভাবে ব্যবসা করতে চাই।' পর্যাপ্ত নিরাপত্তা নিয়ে সৎভাবে ব্যবসা করতে চান তারা। 

সভায় উপস্থিত ছিলেন ডিপলোফ পুলিশ স্টেশনের কর্নেল নিজিমান্ডি, ক্যাপ্টেইন মেত্তো, ইন্টিলিজেন্স ব্রাঞ্চ ক্যাপ্টেন মেজেলো, বাংলাদেশ হাইকমিশনের কাউন্সিলর খালেদা বেগমসহ অন্যান্যরা। স্থানীয় পুলিশ বলছে, পরিস্থিতি শান্ত হওয়ার আগে দোকান খোলা যাবেনা।

ডিপলোফ পুলিশ স্টেশনের কর্নেল নিজিমান্ডে জানান, সংঘর্ষে নিহত দুই স্কুল ছাত্রের শেষকৃত্যে সহিংস ঘটনা ঘটতে পারে। তাই কোন অবস্থায়ই পরিস্থিতি শান্ত হওয়ার আগে দোকান খোলা যাবেনা।

এদিকে বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষ থেকে এই ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে বলেও জানানো হয়।