DBC News
আন্দোলনের পরিকল্পনা করছে বিএনপি

আন্দোলনের পরিকল্পনা করছে বিএনপি

যুগপৎ নির্বাচন ও আন্দোলনের পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নামছে বিএনপি।  তবে, অপেক্ষা করতে চায় তফসিল ঘোষণা পর্যন্ত।  এক এগারোর আগে আওয়ামী লীগের ২০০৬ সালের আন্দোলনের মডেল অনুসরণের কথাও মাথায় রাখছে দলটি। তবে, নেতারা বলছেন, দাবি আদায়ের আন্দোলন সহিংস হলে দায় সরকারের।

৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশে নির্বাচনে অংশ নিতে আবারও দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারসহ বেশ ক'টি শর্ত তুলে ধরে বিএনপি।

দীর্ঘদিনের এসব দাবির বিষয়ে ক্ষমতাসীন দল সাড়া না দেয়ায় এবার আন্দোলনের কথাই ভাবছে বিএনপি; জানানেল দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ।

তিনি বলেন, ‘আমরা সবসময় বলে এসেছি যে আমরা নির্বাচনে বিশ্বাস করি এবং নির্বাচনে আমরা অংশগ্রহণ করবো, অবশ্যই করবো। কিন্তু নির্বাচনে অংশগ্রহণতো শর্তহীনভাবে হতে পারে না। সংসদ না ভেঙ্গে যদি তফসিল ঘোষণা করা হয়, সেদিনই নির্ধারিত হয়ে যাবে দেশে নির্বাচন হবে কি হবে না।’

প্রশ্ন আছে, বিএনপির এই আন্দোলন শেষপর্যন্ত সহিংস হয়ে ওঠবে কিনা? এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘জনগণের পক্ষ থেকেতো কোনদিন সহিংসতা হয়নি। সহিংসতা হয়েছে সরকারের পক্ষ থেকে। এখন বর্তমান যারা ক্ষমতায় আছে তারা যদি সহিংসতায় নেমে পরে, তার দায় দায়িত্ব তাদেরকেই নিতে হবে।’

বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান আহমেদ আজম খান বলেন, ‘বিএনপি কোন ধ্বংসাত্বক আন্দোলনের সাথে সম্প্রিক্ত ছিল না, এখনও থাকবে না, ভবিষ্যতেও বিএনপি জনগণকে সাথে নিয়ে তার দাবি আদায় করবে।’

দাবি আদায়ে এবার অতীতের অভিজ্ঞতা কাজে লাগানোর কৌশলের কথাও ভাবছে দলটি। ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘২০০৬ সালে যদি ফিরে যাওয়া যায়- আওয়ামী লীগ শেষ মুহুর্তে দাবি করে যে, ইয়াজউদ্দিনকে চলে যেতে হবে, নির্বাচন কমিশনকে পুনর্গঠন করতে হবে এবং আরও অনেকগুলো দাবি ছিল। সে দাবি ছিল; নমিনেশনও ফাইল করেছে। আবার জানুয়ারি মাসের ৩ তারিখে, সমস্ত কিছু প্রত্যাহার করে নিল। নির্বাচনি প্রক্রিয়া এবং আন্দোলনের প্রক্রিয়া পাশাপাশি চলতে পারে। অতীতে সবসময় তাই আমরা দেখেছি। ’
আন্দোলনের মাধ্যমেই দাবি আদায় করা হবে বলেও জানান নেতারা।