DBC News
'মীম-রাজিবকে চাপা দেয়া বাস চালকরা হত্যা মামলায় অভিযুক্ত হচ্ছেন না'

'মীম-রাজিবকে চাপা দেয়া বাস চালকরা হত্যা মামলায় অভিযুক্ত হচ্ছেন না'

এক মাসের মাথায় রাজধানীর রমিজউদ্দিন কলেজের দুই শিক্ষার্থী মীম ও রাজিবের নিহতের ঘটনায় করা মামলার তদন্ত কাজ শেষ করে এনেছে গোয়েন্দা পুলিশ। ছয়জনকে আসামী করে অভিযোগপত্র চূড়ান্ত করা হয়েছে। তবে এই মামলায় মীম-রাজিবকে চাপা দেয়া বাস চালকরা হত্যা মামলায় অভিযুক্ত হচ্ছেন না। দণ্ডবিধির যে ধারায় তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হচ্ছে, তার সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড।

ডিবিসি নিউজকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব তথ্য জানিয়েছেন, ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (উত্তর) এর ডিসি মশিউর রহমান। সোমবার তাদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করা হতে পারে বলেও জানান তিনি।

অভিযুক্ত বাস চালকদের সর্বোচ্চ শাস্তির বিষয়ে জানতে চাইলে মশিউর রহমান বলেন, 'তদন্তে ইচ্ছে করে বাস চাপা দেয়ার প্রমাণ মিললেও, ঘটনাটি পূর্বপরিকল্পিত ছিল না। ফলে আসামীরা হত্যা মামলার ধারায় অভিযুক্ত হচ্ছেন না।'

ডিবি ডিসি মশিউর রহমান বলেন, 'ফুটপাতে গাড়ি উঠিয়ে দিলে যে ছাত্রদের মৃত্য হতে পারে এটা ড্রাইভার জানতো। সুতরাং এখানে যেমন দুর্ঘটনার বিষয় আছে, তেমনিভাবে চালক জেনেশুনে ছাত্র-ছাত্রী বা যাত্রীদের উপর উঠিয়ে দিলে হত্যাকাণ্ড হতে পারে সেই অবগতিও আছে। দুই ধরণের কম্বিনেশন এখানে ছিলো।'

তবে, মীমের বাবা জাহাঙ্গীর ফকির যিনি নিজেও একজন বাসচালক; তিনি চান আসামীদের মৃত্যুদণ্ড চেয়েছেন। যেন ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনায় জড়িত কেউ ছাড় না পায়।

রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে জাবালে নূর পরিবহনের দুই বাসের পাল্লাপাল্লিতে নিহত হন শহীদ রমিজউদ্দিন কলেজের দুই শিক্ষার্থী দিয়া খানম মীম ও আব্দুল করিম রাজিব। ২৯শে জুলাইয়ের ওই ঘটনার পর রাস্তায় নেমে আসে শিক্ষার্থীরা। নিরাপদ সড়ক ও দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে তারা।

দুর্ঘটনায় নিহত দিয়ার বাবা বাদী হয়ে ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা তদন্তের ভার দেয়া হয় গোয়েন্দা পুলিশকে। গ্রেপ্তার করা হয় জাবালে নূর পরিবহনের মালিক, চালক ও হেলপারসহ ছয়জনকে। এদের মধ্যে দুই চালকসহ তিনজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দিয়েছেন।

আরও পড়ুন

বিমানবন্দরে আটক হওয়া পিস্তল পুলিশি তদন্তে খেলনা পিস্তল হিসেবে উল্লেখ

কাস্টমস হাউজের বর্ণনায় আসল পিস্তল হলেও পুলিশি তদন্তে তা খেলনা পিস্তল হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। দুই বছর আগে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এই পিস্তল উদ্ধারের সম...

'সবুজ সংকেতের অপেক্ষায় বিএনপির অনেক নেতাকর্মী'

বিএনপি থেকে অনেকেই আওয়ামী লীগে যোগ দিতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে। আমাদের সভানেত্রী শেখ হাসিনার ক্লিয়ারেন্স পেলে, একটু সবুজ সংকেত পেলেই সারা দেশে বিএনপির বিপুল ন...

বিমানবন্দরে আটক হওয়া পিস্তল পুলিশি তদন্তে খেলনা পিস্তল হিসেবে উল্লেখ

কাস্টমস হাউজের বর্ণনায় আসল পিস্তল হলেও পুলিশি তদন্তে তা খেলনা পিস্তল হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। দুই বছর আগে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এই পিস্তল উদ্ধারের সম...

১৩ বছরেও শেষ হয়নি কিবরিয়া হত্যার বিচার

তেরো বছরেও শেষ হয়নি সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএসএম কিবরিয়া হত্যাকান্ডের বিচার। আইনজীবীরা বলছেন, সময়মতো আসামি ও সাক্ষী উপস্থিত না হওয়ায় বিলম্বিত হচ্ছে আলোচিত এই মাম...