DBC News
ঈদ যাত্রায় ১৩ দিনে নিহত ২৫৯ জন

ঈদ যাত্রায় ১৩ দিনে নিহত ২৫৯ জন

এবারের কোররবানির ঈদযাত্রার ১৩ দিনে ২৩৭টি দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ২৫৯ জন। আর ৯৬০ জন আহত হয়েছেন। আজ শুক্রবার সকালে, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য তুলে ধরে যাত্রী কল্যাণ সমিতি।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী জানান, 'ঈদ যাত্রার শুরুর দিন ১৬ই আগস্ট থেকে ঈদের পর ২৮শে অাগস্ট পর্যন্ত এসব দুর্ঘটনা ঘটেছে। ঈদুল ফিতরের তুলনায় দুর্ঘটনা ১৪ দশমিক ৪৪ শতাংশ, প্রাণহানি ২৩ দশমিক ৫৯ শতাংশ এবং আহতের সংখ্যা ২৪ দশমিক ১১ শতাংশ কমেছে। তবে গতবছরের ঈদুল আজহার তুলনায় নিহত ১৩ দশমিক ৫০ শতাংশ এবং আহত ১১ দশমিক ৬৭ শতাংশ বেড়েছে।'

এ সময় তারা বলেন, জবাবদিহিতার অভাবেই সড়কে দুর্ঘটনা কমানো যাচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন যাত্রী কল্যাণ সমিতির নেতারা।

তবে গত রোজার ঈদের চেয়ে কোরবানির ঈদের সময় সড়ক দু্র্ঘটনায় হতাহতের ঘটনা কমায় সরকারের বিভিন্ন সংস্থাকে কৃতিত্বও দেয় যাত্রী কল্যাণ সমিতি।

এছাড়া সড়ক দুর্ঘটনা বন্ধ করতে সংবাদ সম্মেলনে কয়েকটি সুপারিশমালা ঘোষণা করা হয়। সেগুলো হল- 

১| সড়ক পরিবহণ মন্ত্রণালয় থেকে একটি রোড সেফটি ইউনিট গঠন করা। যার কাজ হবে নিয়মিত সড়ক দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধান ও প্রতিকারে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ। 

২| প্রশিক্ষিত চালক গড়ে তোলার জন্য জাতীয় পর্যায়ে চালক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র তৈরি করা। 

৩| নিয়মিত রাস্তার রোড সেফটি অডিট করা। 

৪| ঈদযাত্রায় অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের নৈরাজ্য বন্ধ করা। 

৫| অতিরিক্ত যাত্রী নেয়ার প্রবণতা নিয়ন্ত্রণে মানসম্মত পর্যাপ্ত গণপরিবহনের ব্যবস্থা করা। 

৬| মহাসড়কে ধীরগতির যান ও দ্রুতগতির যানের জন্য আলাদা লেনের ব্যবস্থা করা।

৭| ফিটনেসবিহীন লক্কর-ঝক্কর ঝুঁকিপূর্ণ যানবাহন চলাচল বন্ধ করা।

৮| মহাসড়কে নসিমন-করিমন, ব্যাটারিচালিত রিকশা, অটোরিকশা বন্ধে সরকারের গৃহীত সিদ্ধান্ত শতভাগ বাস্তবায়ন করা। 

৯| ভাঙাচোরা রাস্তাঘাট মেরামত করা। 

১০|জাতীয় ও আঞ্চলিক মহাসড়কে ফুটপাত, আন্ডারপাস ও ওভারপাস তৈরি করে পথচারীদের যাতায়াতের ব্যবস্থা করা।