DBC News
'পোশাক শিল্পের শোভন কর্মপরিবেশ তৈরির কাজ সন্তোষজনক নয়'

'পোশাক শিল্পের শোভন কর্মপরিবেশ তৈরির কাজ সন্তোষজনক নয়'

রানাপ্লাজা পরবর্তী সময়ে পোশাক শিল্পের শোভন কর্মপরিবেশ তৈরির কাজের অগ্রগতি সন্তোষজনক নয়। এসব উদ্যোগের বেশিরভাগই নেয়া হয়েছে শুধু কারখানা নিরাপদ করার জন্য। সিপিডির গবেষণায় উঠে এসেছে এসব তথ্য। এতে দেখা গেছে, আইনে সংগঠিত হবার অধিকারের কথা থাকলেও, মাত্র আড়াই শতাংশ কারখানায় শ্রমিক ইউনিয়ন আছে। আর যৌন হয়রানি কমলেও, পোশাক শিল্পে, নারী-পুরুষের বেতন বৈষম্য এখনও উদ্বেগজনক।

২০১৩ সালের ২৪শে এপ্রিল সাভারে রানাপ্লাজা ধস বিশাল অনিশ্চয়তায় ঠেলে দিয়েছিলো দেশের পোশাক খাতকে। এর জের ধরে কারখানাগুলো সংস্কারে কাজ শুরু করে ইউরোপ আমেরিকার ক্রেতাজোট অ্যাকর্ড আর অ্যালায়েন্স। তাদের কার্যক্রম শেষ হচ্ছে আগামী ডিসেম্বরে।

এ ৫ বছরে, পোশাক খাতের রুপান্তর কতটা হয়েছে, বৃহস্পতিবার রাজধানীর একটি হোটেলে সেই মুল্যায়ন তুলে ধরে সিপিডি।

সিপিডির গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম জানান, 'ওভেন কারখানাগুলো নিটের চেয়ে ভালো করেছে। যেসব কারখানা সরাসরি ব্র্যান্ডের মাধ্যমে ব্যবসা করে, তাদের অবস্থা, বায়িং হাউজের মাধ্যমে ব্যবসা করা কারখানাগুলোর চেয়ে ভালো। কিন্তু সামগ্রিক ভাবে শোভন কাজের ক্ষেত্র হিসেবে পোশাক খাতের অগ্রগতি এখনও সন্তোষজনক নয়। তাই শ্রমিকের উৎপাদনশীলতাও বাড়েনি।'

পোশাক খাতে শোভন কাজের পরিবেশ তৈরিতে মালিকদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাবের হোসেন চৌধুরী। তিনি বলেন, 'বাংলাদেশের পোষাক খাতের যে রুপান্তর সেটা খুব মর্মান্তিক দুর্ঘটনার মাধ্যমে হয়েছে। সামনের দিনগুলোতে যেসব চ্যালেঞ্জ আছে, সেগুলো মোকাবিলা করতে কি এ রকম কোন বড় দুর্ঘটনার প্রয়োজন আছে? নাকি মালিকরা নিজ উদ্দ্যোগেই এই সমস্যাগুলোর সংস্কার কাজ শেষ করবে। আমি আশা করি তারা এই কাজ আরও আন্তরিকতার মাধ্যমে শেষ করবে।'

পোশাক শিল্পকে সবদিক দিয়ে নিরাপদ করার বিষয়ে মালিকরা আন্তরিক উল্লেখ করে এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, 'পণ্যের দাম না বাড়ায়, নতুন করে বিনিয়োগ কঠিন হয়ে পড়েছে। ২০০০ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত তৈরি পোষাকের দাম কমেছে প্রায় ৪০ শতাংশ।কিন্তু আগের চেয়ে আমাদের কারখানা সংস্কারের খরচ বেড়েছে। এর ফলে প্রায় ১২০০ কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে। কিন্তু তবুও আমরা নিরাপত্তার ক্ষেত্রে কোন ছাড় দেইনি।'

সিপিডির গবেষণায় বলা হয়েছে, পোশাক কারখানার উন্নয়নের সাথে তাল মিলিয়ে শ্রমিকের জীবনমানের উন্নতি না হলে দীর্ঘমেয়াদে এ শিল্পের প্রতিযোগিতা সক্ষমতা ধরে রাখা কঠিন হবে।