DBC News
জাতিসংঘের প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করলো মিয়ানমার

জাতিসংঘের প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করলো মিয়ানমার

জাতিসংঘের স্বাধীন আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে মিয়ানমার সরকার। সে দেশের সরকারের মুখপাত্র জ হাতোইকে উদ্ধৃত করে দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদমাধ্যম গ্লোবাল নিউজ লাইট অব মিয়ানমার জানায়, স্বাধীন আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন গঠন করা হয়েছিল হিউম্যান রাইটস কাউন্সিলের একটি প্রস্তাবের ভিত্তিতে; যার সঙ্গে  মিয়ানমার সরকার নেই।

গ্লোবাল নিউজ লাইট অব মিয়ানমারের সংবাদে বলা হয়, 'মিয়ানমার সরকার যে হিউম্যান রাইটস কাউন্সিলের রেজুলেশনের সঙ্গে নেই, তা সব সময়ই স্পষ্ট করে বলা হয়েছে।' 

জ হাতোইকে উদ্ধৃত ওই প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়, 'ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনকে আমরা মিয়ানমারে ঢুকতে দিইনি। তাই হিউম্যান রাইটস কাউন্সিলের কোনো রেজুলেশনের সঙ্গে আমরা একমত নই, তা আমাদের কাছে গ্রহণযোগ্যও নয়।'

সরকারি ওই মুখপাত্র আরও জানান, 'মিয়ানমার মানবাধিকার লংঘনের বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি প্রদর্শন করে। এরই মধ্যে জাতিসংঘ ও অন্যান্য আন্তর্জাতিক মহলের 'ভুল অভিযোগের' প্রেক্ষিতে দেশটিতে একটি তদন্ত কমিশন গঠন করা হয়েছে।' 

জাতিসংঘের প্রতিবেদনের বেশিরভাগ অভিযোগ অস্বীকার করে মিয়ানমার জানায়, 'রাখাইন রাজ্যের পশ্চিমাংশে পুলিশ চৌকিতে রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের হামলার প্রতিক্রিয়ায় দেশটির সেনাবাহিনী আইনত বৈধ অভিযান পরিচালনা করে।'

জ হাতোই বলেন, 'যদি মানবাধিকার লঙ্ঘনের কোনো ঘটনা ঘটে, আমাদের সেই তারিখ, ঘটনা আর প্রমাণ বলুন, যাতে আমরা আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারি।'

২০১৭ সালের ২৫শে আগস্ট রাখাইনে নিরাপত্তা বাহিনীর বেশ কিছু স্থাপনায় আরাকান রোহিঙ্গা সালভেশন আর্মি-আরসার হামলার পর শুরু হয় রোহিঙ্গা নিধন অভিযান। দমন-নিপীড়নের মুখে প্রাণে বাঁচতে দলে দলে বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে থাকে রোহিঙ্গারা। 

এখন পর্যন্ত ১১ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। মিয়ানমার সেনা বাহিনীর ওই অভিযানকে জাতিগত নিধন অভিযান বলে অ্যাখ্যায়িত করেছে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থা।