DBC News
হজ পালনে গিয়ে ভোগান্তিতে হাজিরা

হজ পালনে গিয়ে ভোগান্তিতে হাজিরা

মক্কায় পবিত্র হজ পালন শেষে কিছু অসাধু এজেন্সির অব্যবস্থাপনার কারণে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন বাংলাদেশি হাজিরা। 

আল্লাহর ডাকে সাড়া দিয়ে যারা হজ পালন করতে যান তারা আল্লাহর মেহমান হিসেবেই গণ্য হন। হজ পালন করতে আসা সারা পৃথিবীর হজযাত্রী বা হাজিরা আল্লাহর মেহমান হিসেবে বিশেষ মর্যাদা পেয়ে থাকেন। হজ পালন করতে আসা হাজিদের যেন কোন বিড়ম্বনায় পড়তে না হয় সেজন্য নেয়া হয় যথাযথ ব্যবস্থা। তবে বাংলাদেশের হজ এজেন্সিগুলোর দায়িত্ব পালনে আন্তরিকতার অভাব রয়েছে বলে মনে করছেন হাজিরা।

আর অনুমতি ছাড়া হজ পালনসহ নানা অনিয়মের অভিযোগে এবার ৪০ হাজার বাংলাদেশি হাজিকে সনাক্ত করেছে সৌদি আইন প্রয়োগকারী সংস্থা।

হজের শেষ দিন জামারায় কঙ্কর নিক্ষেপের পর মিনার তাঁবু ছাড়ছেন হাজীরা। সব আনুষ্ঠানিকতা শেষে ২৭শে আগস্ট থেকে শুরু হয়েছে বাংলাদেশি হাজিদের ফিরতি হজ ফ্লাইট। সব কিছু ঠিক থাকলে ২৬শে সেপ্টেম্বরের মধ্যেই ফিরে আসবেন বাংলাদেশ থেকে হজ পালন করতে যাওয়া হাজিরা।

তবে কয়েকটি হজ এজেন্সির খামখেয়ালীর কারণে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন অনেক হাজি। বাসস্থানের অভাবে হাজীদের রাত কাটাতে হচ্ছে মক্কার রাস্তাসহ বাংলাদেশ হজ মিশনের প্রাঙ্গণ ও বারান্দায়।

আসা-যাওয়াসহ সবকিছুতেই ভোগান্তিতে পড়েছেন বলে জানান হাজিরা। এছাড়া এজেন্সিগুলো হাজিদের যেসব সুযোগ-সুবিধা দেয়ার কথা ছিলো সেগুলোও তারা পূরণ করেনি বলেও অভিযোগ করেন হাজিরা। হজ পালনে বিভিন্নস্থানে যাতায়াতের জন্য হাজিদের পরিবহণ সুবিধা দেয়ার কথা থাকলেও এজেন্সিগুলো তা পূরণ করেনি বলেও অভিযোগ করেন হাজিরা।

এদিকে মক্কায় বাংলাদেশ হজ মিশন ও সৌদি হজ কর্তৃপক্ষ, হাজীদের কাবা শরিফের কাছাকাছি স্থানে থাকার ব্যবস্থা না করাসহ চুক্তি ভঙ্গের ৫০টি অভিযোগ এনেছে কিছু হজ এজেন্সির বিরুদ্ধে।

বাংলাদেশি হাজিদের হয়রানি রোধে সবধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়ে ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমান জানান, তদন্ত করে দায়ী এজেন্সিগুলোর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সৌদি আরবের সংবাদ মাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বের ১৬৪টি দেশের ২০ লাখের বেশি মুসলমান এবার হজ করছেন। এরমধ্যে যাদের মধ্যে বাংলাদেশির হাজির সংখ্যা ১ লাখ ২৭ হাজার ২'শ ৯৮ জন।

এর আগে হজ এজেন্সিগুলোর অবহেলা, অনাগ্রহসহ নানা কারণে এ বছর হজে যেতে পারেননি ৬০৬ জন হজযাত্রী। তখন এসবের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান ধর্মমন্ত্রী। এ সময় কিছু এজেন্সির উদাসীনতার কারণে রিপ্লেসমেন্ট কোটাও পূরণ হয়নি। 

চুক্তি অনুযায়ী এ বছর বাংলাদেশ থেকে হজে যাওয়ার কথা ছিল ১ লাখ ২৬ হাজার ৭৯৮ জন। এদের মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৬ হাজার ৭৯৮ জন। বাকিরা বেসরকারি ব্যবস্থাপনায়। সৌদি দূতাবাস ১ লাখ ২৬ হাজার ১৮৩ জনকে ভিসা দেয়।

আরও পড়ুন

'মালয়েশিয়ায়  শ্রমিক পাঠাবে  সব এজেন্সি'

এখন থেকে বাংলাদেশের সকল বৈধ রিক্রুটিং এজেন্সি মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিক পাঠাতে পারবে।  একথা জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল...

ঐক্যের বৈঠকে যাননি ড. কামাল

ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বাসায় বৃহত্তর ঐক্যের বৈঠকে যোগ দেননি জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার আহবায়ক ড. কামাল হোসেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে এ বৈঠক শুরু হয়।...

উৎসব মুখরতায় মধুপূর্ণিমা পালিত

  আজ মধু পূর্ণিমা। এ দিনটি বৌদ্ধদের কাছে স্মরণীয় ও আনন্দ-উৎসবমুখর পুণ্যময় একটি দিন।  গৌতম বুদ্ধের স্মরণে যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্বীর্য ও উৎসব মু...

যথাযথ মর্যাদায় পালিত হচ্ছে মধু পূর্ণিমা

রাজধানীতে বৌদ্ধদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব শুভ মধু পূর্ণিমা যথাযথ মর্যাদায় পালিত হচ্ছে। সোমবার সকাল থেকে, মেরুল বাড্ডা আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারে বুদ্ধ ও ভিক্ষুসংঘকে ম...