DBC News
'জাতীয় নির্বাচনে শরিক দলকে ৬৫-৭০ আসন দেয়া হতে পারে'

'জাতীয় নির্বাচনে শরিক দলকে ৬৫-৭০ আসন দেয়া হতে পারে'

আগামী জাতীয় নির্বাচনে ৬৫ থেকে ৭০ টি আসন শরিক দলগুলোকে ছেড়ে দিতে পারে আওয়ামী লীগ বলে জানিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এছাড়া, দল এবং শরিকদের মধ্যে যারা এলাকায় জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে পারেন নি তারা মনোনয়ন পাবেন না।  

আজ রবিবার সকালে, সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এমনটাই জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

ঈদের পর প্রথম কর্মদিবসে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আগামী নির্বাচনসহ নানা বিষয়ে কথা বলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

ওবায়দুল কাদের বলেন, 'আমাদের প্রার্থী থেকে যদি আমাদের শরিক দলের প্রার্থী বেশী জনপ্রিয় হয়, তাহলে আমরা অবশ্যই তাকে মনোনয়ন দিবো। শুধু আমাদের দলীয় লোক বলে যে আমরা দুর্বল প্রার্থীকে মনোনয়ন দিব, এবার এমনটা হবে না।'

নির্বাচনের আগে ১৪ দলীয় জোটে আরো দল যুক্ত হতে পারে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, 'দল এবং সময়ের প্রয়োজনে জাতীয় পার্টীর মত অন্য দলগুলোর সাথেও আমরা ঐক্য করতে পারি।'সেপ্টেম্বর থেকেই আওয়ামী লীগ প্রার্থী মনোনয়ন চুড়ান্ত করা শুরু করবে বলেও জানান দলের সাধারণ সম্পাদক। 

একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় ন্যায় বিচার হলে বিএনপি নেতারা পার পাবেন না বলেও মনে করেন তিনি।

এদিকে, ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় সরকার হস্তক্ষেপ করছে না বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। রবিবার সকালে সচিবালয়ে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ের সময় তিনি আরও বলেন, এ হামলায় জড়িতদের বিচার চাওয়া গণতান্ত্রিক অধিকার, আদালতের কার্যক্রমে হস্তক্ষেপ নয়।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময় সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারীদের চিহ্নিত করে শাস্তির বিষয়ে যে উদ্যোগ তিনি নিয়েছিলেন, তার অগ্রগতি নিয়ে প্রশ্ন করেন সাংবাদিকেরা। জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আজই অফিস খুলল। কিন্তু বন্ধের মধ্যেও আমার তদবির অব্যাহত রেখেছি। আশা করছি, হামলাকারীরা আইনের আওতায় আসবে এবং সাজা পাবে।’

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া কারাগারে বন্দি থেকেও আন্দোলনের হুমকি দিচ্ছেন উল্লেখ করে দেশবাসীকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান তথ্যমন্ত্রী।  

প্রসঙ্গত, ২০০৪ সালে বিএনপি সরকার ক্ষমতায় থাকার সময় ২১শে আগস্ট আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় গ্রেনেড হামলা করা হয়। ওই ঘটনায় আওয়ামী লীগ নেত্রী আইভি রহমানসহ মারা যান ২৪জন নেতা-কর্মী। আহত হন অসংখ্য মানুষ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেলেও তার শ্রবণ শক্তি নষ্ট হয়।

গ্রেনেড হামলায় করা দু'টি মামলায় আসামি বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, সাবেক স্বরাস্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, সাবেক শিক্ষা উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টু, সাবেক এমপি শাহ মোফাজ্জল কায়কোবাদ, বিএনপি নেতা হারিস চৌধুরি, সাবেক তিন আইজিপি আশরাফুল হুদা, শহুদুল হক ও খোদা বক্স চৌধুরি, সাবেক সামরিক গোয়েন্দা কর্মকর্তা এটিএম আমিন, সাইফুল ইসলাম জোয়ার্দার ও জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার সাবেক মহাপরিচালক রেজাকুল হায়দার এবং হরকাতুল জিহাদের বেশ কজন নেতাসহ ৪৯ জনকে আসামি করা হয়েছে। 

আরও পড়ুন

কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন আলোকচিত্রী শহিদুল আলম

১০৭ দিন কারাভোগের পর মুক্তি পেয়েছেন আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলম। মঙ্গলবার রাত পোনে ৯টার দিকে কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পান ড. শহিদুল আ...

'বর্ণচোরাদের ব্যালটের মাধ্যমে প্রত্যাখান করবে জনগণ'

যাঁরা এখনো মুজিব কোট পড়েন, বঙ্গবন্ধুর কথা বলেন, তাঁরা বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে এবং খুনিদের পৃষ্ঠপোষকদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন। এর বিচার ৩০শে ডিসেম্বর দেশের জনগণ ত...

নয়াপল্টনে সংঘর্ষের ঘটনায় আটক ৭৮ জন

নয়াপল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সংঘর্ষের ঘটনায় ৭৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এরমধ্যে ৬৫ জনকে সংঘর্ষের দিনই গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর গ্রেপ্তার করা হয়...

'বর্ণচোরাদের ব্যালটের মাধ্যমে প্রত্যাখান করবে জনগণ'

যাঁরা এখনো মুজিব কোট পড়েন, বঙ্গবন্ধুর কথা বলেন, তাঁরা বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে এবং খুনিদের পৃষ্ঠপোষকদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন। এর বিচার ৩০শে ডিসেম্বর দেশের জনগণ ত...