DBC News
'২১শে আগষ্টের রায় নিয়ে নীল নকশা প্রণয়নের চেষ্টা চলছে'

'২১শে আগষ্টের রায় নিয়ে নীল নকশা প্রণয়নের চেষ্টা চলছে'

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ নেতাদের বক্তব্য প্রমাণ করে ২১শে আগষ্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় নিয়ে একটি রাজনৈতিক নীল নকশা প্রণয়ন করার চেষ্টা চলছে বলে মন্তব্য করেছেন, বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। শনিবার রাজধানীর নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এসব বলেন। 

তিনি বলেন, 'আওয়ামী লীগের কথা শুনে মনে হয় তারা ২১শে আগষ্টের রায়কে প্রভাবিত করছে। তাদের বক্তব্যে মনে হয় তারা নিজেরা রায় লিখে রেখেছে।'

এ সময় তিনি আরও বলেন, 'কাদের সাহেবের বক্তব্যে মনে হয়েছে এই রায় নিয়ে তারা একটি রাজনৈতিক নীল নকশা প্রনয়ন করছে।' 

রিজভী বলেন, 'প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ওবায়দুল কাদের সাহেবরা একুশে অগাস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়কে প্রভাবিত করতেই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে নিয়ে বেসামাল বক্তব্য রাখছেন।'

তিনি বলেন, 'মানুষের ক্ষোভের ধাক্কায় আসন্ন পতনের ভয়ে সরকারের বুকে ধড়ফাড়ানি শুরু হয়েছে। কিন্তু যতই ষড়যন্ত্র ও মহাপরিকল্পনা করেন না কেন ওবায়দুল কাদের সাহেব, আপনাদের পতন ঠেকানো যাবে না। আপনাদের পতনের ভূমিকম্প শুরু হয়েছে।'

এর আগে, শুক্রবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, 'আগামী মাসে ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় হলে বিএনপি আবারও রাজনৈতিক সংকটে পড়বে।' ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় যখনই ঘনিয়ে আসছে, ঠিক তখনই তারা (বিএনপি) হইচই শুরু করেছে। এর মাধ্যমে তারা খুনিদের বাঁচানোর অপচেষ্টা চালাচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন ওবায়দুল কাদের। 

২০০৪ সালে বিএনপি সরকার ক্ষমতায় থাকার সময় ২১শে আগস্ট আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় গ্রেনেড হামলা করা হয়। ওই ঘটনায় আওয়ামী লীগ নেত্রী আইভি রহমানসহ মারা যান ২৪জন নেতা-কর্মী। আহত হন অসংখ্য মানুষ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেলেও তার শ্রবণ শক্তি নষ্ট হয়ে যায়।

গ্রেনেড হামলায় করা দু'টি মামলায় আসামি বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, সাবেক স্বরাস্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, সাবেক শিক্ষা উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টু, সাবেক এমপি শাহ মোফাজ্জল কায়কোবাদ, বিএনপি নেতা হারিস চৌধুরি, সাবেক তিন আইজিপি আশরাফুল হুদা, শহুদুল হক ও খোদা বক্স চৌধুরি, সাবেক সামরিক গোয়েন্দা কর্মকর্তা এটিএম আমিন, সাইফুল ইসলাম জোয়ার্দার ও জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার সাবেক মহাপরিচালক রেজাকুল হায়দার এবং হরকাতুল জিহাদের বেশ কজন নেতাসহ ৪৯ জনকে আসামি করা হয়েছে।