DBC News
শামসুর রাহমানের ১২তম মৃত্যুবার্ষিকী

শামসুর রাহমানের ১২তম মৃত্যুবার্ষিকী

আধুনিক বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান কবি শামসুর রাহমানের ১২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০০৬ সালের ১৭ই আগস্ট চিকিৎসাধীন অবস্থায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে মৃত্যুবরণ করেন শামসুর রাহমান।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের ওপর লেখা তাঁর লেখা কবিতা 'স্বাধীনতা তুমি' এবং 'তোমাকে পাওয়ার জন্য হে স্বাধীনতা' ছাড়াও বর্ণমালা, আসাদের শার্টসহ অনেক কবিতাতেই দেশের প্রতি প্রেম ও দেশের মানুষের প্রতি ভালোবাসা প্রতিপাদ্য হিসেবে উঠে এসেছে। তার লেখা প্রতিদিন প্রাণ জাগায় হাজারো পাঠকের। তাকে নাগরিক কবিও বলা হয়ে থাকে। স্বাধীনতা পরবর্তীকালেও আধুনিক বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান কবি শামসুর রাহমান।

১৯২৯ সালের ২৩শে অক্টোবর পুরান ঢাকার মাহুত টুলিতে তাঁর নানা বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন শামসুর রাহমান। তবে শামসুর রাহমানের পৈতৃকবাড়ি নরসিংদী জেলার রায়পুরার পাড়াতলী গ্রামে। কিন্তু ঢাকা নগরেই তাঁর বেড়ে ওঠা। তাই নাগরিক সুখ-দুঃখ তাঁর কবিতায় বিশেষভাবে উঠে এসেছে। এ কারণে তাঁকে নাগরিক কবিও বলা হয়।

নাগরিক কবি হিসেবে তাঁর কাব্য ও গদ্য সমৃদ্ধ করেছে বাংলা সাহিত্যকে। ৬৬ টি কাব্যগ্রন্থ, ৪টি উপন্যাস, প্রবন্ধ, ছড়া, অনুবাদ সাহিত্য ছাড়াও লিখেছেন বেশ কিছু গান।

জীবনের সত্য ও সুন্দরকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে শামসুর রাহমান ছিলেন অনন্য। তাঁর রচনায় ফুটে উঠেছে বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রামের ইতিহাস, রাজনৈতিক জটিলতা আর সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন জীবন সংগ্রামের গল্প।

সাংবাদিক ও সম্পাদক হিসেবে পেশাজীবন কাটানো এই কবি অসাম্প্রদায়িকতা, মানবমুক্তি ও মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় কাজ করে গেছেন আমৃত্যু।

বিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয় ভাগের অন্যতম প্রধান কবি শামসুর রাহমান। একুশে পদক, স্বাধীনতা পদক, বাংলা একাডেমি পুরস্কার, আনন্দ পুরস্কারসহ পেয়েছেন অজস্র সম্মাননা। ২০০৬ সালের ১৭ই আগস্ট পরপারে পাড়িজমান বাংলাসাহিত্যের এই কিংবদন্তি কবি।