DBC News
খামারেই বিক্রি হচ্ছে কোরবানির পশু

খামারেই বিক্রি হচ্ছে কোরবানির পশু

ঈদের চাঁদ দেখার সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন খামারে শুরু হয়েছে কোরবানির পশু বিক্রি। দেশি গরুর পাশাপাশি বিদেশ থেকে আনা গরুও রয়েছে এসব খামারে। এর মধ্যে সাদিক এগ্রো নামের একটি খামার সর্বোচ্চ ৩১ লাখ টাকায় বিক্রি করেছে একটি আমেরিকান বাম্মা জাতের গরু।

আমেরিকা থেকে আনা গরু বাম্মা, বেনগাস, বাহাদুর। ওজন কমবেশি পনের'শ কেজি। শুরুতে এসব পশুর দাম চাওয়া হয় ৩৫ থেকে ৪০ লাখ টাকা করে। শেষ পর্যন্ত সর্বোচ্চ ৩১ লাখ থেকে ২৮ লাখ টাকায় বিক্রি হয়েছে বাম্মা জাতের গরু।

রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বেড়িবাঁধ এলাকায় সাদিক এগ্রোতে ভারত, অস্ট্রেলিয়া, আমেরিকাসহ বিভিন্ন দেশ থেকে আনা হয়েছে কোরবানির পশু। রয়েছে দেশি গরুও। তবে খামার থেকেই বিক্রি হচ্ছে এসব পশু।

কোরবানির ঈদ সামনে রেখে ১১শ'রও বেশি পশু আনা হয়েছে এই খামারে। বেশিরভাগই বিক্রি হয়ে গেছে হাটে ওঠার আগেই। আর সবচে চড়া দামের গরুটিও পৌঁছে গছে ক্রেতার বাসায়।

সাদিক এগ্রো স্বত্বাধিকারী ইমরান হোসাইন জানান, আমাদের কাছে কোন গ্রাহকই ছোট না। তাই সর্বনিম্ন ৭০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ দামের গরু বিক্রি হয়েছে ৩১ লাখ টাকায়। ৩১ লাখ টাকায় বিক্রিত গরুটিও গ্রাহকের বাসায় পৌঁছে দেয়া হয়েছে বলেও জানান ইমরান হোসাইন। এ সময় তিনি জানান অনেকেই খামারে দেখতে এসেও কোরবানির পশু পছন্দ হওয়ায় কিনে নিয়ে গেছেন।

পশুর হাটের ভিড় এড়াতে অনেকেই বিভিন্ন খামারে গিয়ে গরু পছন্দ করেন। চাহিদা মেটাতে দেশি গরুর পাশাপাশি সংকর গরু উৎপাদনের দিকেও গুরুত্ব দিচ্ছেন খামারীরা।

এদিকে কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে দেশের বিভিন্নস্থানের মত সাতক্ষীরা, বাগেরহাট ও নড়াইলে চলছে কোরবানির পশুর পরিচর্যা। প্রাকৃতিক উপায়ে লালন পালন করা এসব গরু-ছাগলের ভালো দাম পাবেন বলে আশা করছেন খামারিরা।

ঈদকে সামনে রেখে সাতক্ষীরায় ১০ হাজার ৫'শ খামারে ৬০ হাজার ৪'শ পশু মোটাতাজা করা হয়েছে। ফলে ঈদে কোনো পশু সংকট হবে না বলে আশা করা হচ্ছে। এরইমধ্যে বাজারে বেচাকেনাও শুরু হয়েছে।

এবার ভারতীয় গরু না থাকায় আনন্দিত খামারিরা। গরু ব্যবসায়ীরা জানান, গেলবারের তুলনায় এবার ভারতীয় গরু তেমন একটা আসছে না। খাটাল বর্তমানে একদম বন্ধ বলেও জানান অনেক গরু ব্যবসায়ীরা। ভারতীয় গরু না আসায় এবার গরুর দামও বেশ ভাল পাচ্ছেন বলেও জানান ব্যবসায়ীরা। 

বাগেরহাটেও দেশীয় পদ্ধতিতে করা হচ্ছে গরুর পরিচর্যা। কোনরকম ক্ষতিকর ইনজেকশন ও ট্যাবলেট ব্যবহার না করে এসব গরু লালন পালন করছেন খামারিরা। তারা বলছেন, ভারতীয় গরু না এলে এবার লাভের মুখ দেখা যাবে। আর নড়াইলে এবার প্রাকৃতিক উপায়ে প্রায় ২১ হাজার গরু পরিচর্যা করছেন খামারিরা। ভালো দাম পেলে তারা লাভবান হবেন বলে আশা করছেন খামারিরা।

আরও পড়ুন

রপ্তানির সম্ভাবনাময় খাত তথ্যপ্রযুক্তি

২০২১ সাল নাগাদ তথ্য ও প্রযুক্তিপণ্য রপ্তানির লক্ষ্য পূরণ করতে হলে আগামী ৩ বছরে ৫ গুণ বাড়াতে হবে রপ্তানি। সেজন্য পুরো দেশকে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের আওতায় আনার দা...

বাংলাদেশের সীমান্তেই বাণিজ্য বাধা বেশি

আমদানি রপ্তানি বাণিজ্যে সুযোগ সুবিধার ক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। বিশ্বব্যাংকের গবেষণায় উঠে এসেছে এ তথ্য। বিশ্লেষকরা বলছেন, গত দশ বছরে, অ...

কর্ণফুলী টানেলের মূল নির্মাণকাজ শুরু রবিবার

চট্টগ্রামে কর্ণফুলী নদীর তলদেশে মূল টানেলের নির্মাণকাজ শুরু হচ্ছে রবিবার। টানেল বোরিং মেশিন চালু ও এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের পিলার পাইলিং প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন প...

পাঁচ জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৮

ঢাকার ধামরাই, টাঙ্গাইল, চট্টগ্রাম, হবিগঞ্জ ও রাজবাড়ীতে সড়ক দুর্ঘটনায় বাবা-ছেলেসহ নিহত হয়েছে সাতজন। আহত হয়েছে আরও ২৫ জন। আজ শনিবার দুপুরে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বাথ...