DBC News
বিশ্বকাপ ফুটবলের মেগা ফাইনাল আজ

বিশ্বকাপ ফুটবলের মেগা ফাইনাল আজ

ইতিহাস গড়া রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনা্লে আজ ক্রোয়েশিয়ার মুখোমুখি হচ্ছে ১৯৯৮ এর বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স। মস্কোর লুজনিকি স্টেডিয়ামে রাত ৯টায় শুরু হবে ম্যাচ।
 
এ যুগের মদ্রিচরা ছাড়িয়ে গেছেন ঐ যুগের সকারদের কীর্তি। একে একে ছয়টা বাধা উতরে গেছে ক্রোয়েশিয়া। আর মাত্র একটা বাধা অতিক্রম করলেই ইতিহাসের পাতায় অমর হয়ে থাকবে জ্লাতকো দালিচের দল।

ওদের শক্তি লুকিয়ে আছে মাঝমাঠে। ম্যাচের কন্ট্রোলটা হাতের মুঠোয় এনে দেন মদ্রিচ-রাকিতিচ। কেউই ক্রোয়েশিয়াকে এখানে আশা করেনি। কিন্তু যোগ্য দল হিসেবেই স্বপ্নের ফাইনালে ওরা। নক আউটে ফ্রান্সের চেয়ে পুরো নব্বই মিনিট বেশি খেলেছেন মদ্রিচ-রাকিতিচ-পেরিসিচরা। তবে ওরা মোটেই ক্লান্ত নন। লড়াকু মনোভাবটা ওদের রক্তেই আছে। কোন ভাবেই হার মেনে নিতে রাজি না। হাড়ে হাড়েই টের পেয়েছিল ইংল্যান্ড।

রাশিয়ায় সবচেয়ে শক্তিশালী দল ফ্রান্স। প্রতিটা ম্যাচেই উন্নতি করেছে দ্য ব্লুজ। বেলজিয়ামের মতো আক্রমণাত্মক দলও ওদের টলাতে পারেনি। পগবা-কন্তে-মাতুইদিরা এমনই কৌশল জানেন যে প্রতিপক্ষ তাদের নরমাল গেমটা খেলতে পারে না। আর দেশমের দল যখন আক্রমণে উঠে তখন খড়কুটোর মতোই উড়ে যেত ওপাশের রক্ষণ। এমবাপে-গ্রিজমান আলোর নিচে আছেন ঠিকই। তবে জিরু অফফর্মে আছেন ভেবে বসলে বোকামিই হবে। কারণ আক্রমণভাগের ঐ দুই তারার বল পাওয়ার পথটা তৈরি হয়ে যায় জিরুর কারণেই।

ক্রোয়েশিয়ার ফিজিক্যাল চ্যালেঞ্জও ফ্রান্সের চিন্তার কারণ। একেবারে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত এক তালে খেলার সামর্থ্য আছে মদ্রিচের দলের। যদিও ফ্রান্স প্রমাণ করেছে ওরা কতোটা সলিড।

বলা হচ্ছে ফাইনালটা ১৯৯৮ বিশ্বকাপ সেমিফাইনালের রি-ম্যাচ। সেবার ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়েছিল ফ্রান্স। প্রতিশোধ নেয়ার সুযোগ মদ্রিচদের সামনে। অন্যদিকে দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপ জেতার হাতছানি ফ্রান্সের সামনে। মারিও জাগালো, ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ারের পর খেলোয়াড় এবং কোচ হিসেবে বিশ্বকাপ জেতার সুযোগ দিদিয়ের দেশমের।