DBC News
বাংলাদেশ ব্যাংককে আরও শক্তিশালী করার তাগিদ

বাংলাদেশ ব্যাংককে আরও শক্তিশালী করার তাগিদ

আমানতের সুদের হার বেশি থাকায় আড়াই শতাংশ কর্পোরেট ট্যাক্স কমার পরও ঋণের সুদের হার এখনই এক অংকে নামিয়ে আনা সম্ভব নয়। তবে করের হার কমার কারণে মুনাফা বাড়লে তার সুবিধা পাবেন শেয়ারহোল্ডাররা। এদিকে, ব্যাংকিং কমিশন না করার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন বিশ্লেষকরা। তাগিদ দিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংককে আরও শক্তিশালী করার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যান বলছে, চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত ব্যাংক খাতে ঋণ বিতরণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে আট লাখ ২২ হাজার ১৩৭ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছাড়িয়েছে সাড়ে ৮৮ হাজার কোটি টাকা। যা মোট ঋণের ১০ দশমিক ৭৮ শতাংশ।  গত ডিসেম্বরের শেষে এর পরিমাণ ছিল প্রায় ৭৪ হাজার কোটি টাকা বা ৯ দশমিক ৩১ শতাংশ। 

ব্যাংকিং খাতে অনিয়ম যখন চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে ঠিক সেই সময়ই বাজেটে আড়াই শতাংশ কর অব্যাহতির প্রস্তাব দিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

কর্পোরেট ট্যাক্স ছাড়ের এ সুবিধা উদ্যোক্তা বা বিনিয়োগকারীদের পাওয়ার খুব বেশি সুযোগ নেই। বরং তা ব্যাংক পরিচালনায় কিছুটা সহায়ক ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ এর সভাপতি সৈয়দ মাহবুবুর রহমান।

এদিকে, কোনো রকম সংস্কারমূলক উদ্যোগ ছাড়াই কেবল ব্যাংকিং খাতে এ সুবিধা দেয়া ঠিক হয়নি বলে মনে করছেন অর্থনীতি বিশ্লেষক মামুন রশিদ। ব্যাংকিং খাতে চলমান অস্থিরতা দূর করতে আলাদা কমিশন গঠনের চেয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক এবং ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগকে শক্তিশালী করার তাগিদও দিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি অন্যান্য কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানকেও কর ছাড় দেয়ার পরামর্শ তার।