DBC News
'প্রস্তাবিত বাজেট বাস্তবায়ন কঠিন হবে'

'প্রস্তাবিত বাজেট বাস্তবায়ন কঠিন হবে'

প্রস্তাবিত বাজেটের বেশির ভাগ লক্ষ্যমাত্রাই অর্জন যোগ্য নয়। এই বাজেটে দীর্ঘমেয়াদী অর্থনৈতিক লক্ষ্যমাত্রার কোনো প্রতিফলন ঘটেনি; বরং নির্বাচনকে সামনে রেখে, জনগণকে খুশি করতে, কোনো শক্ত ভিত্তি ছাড়াই অবাস্তব লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছেন অর্থমন্ত্রী। 

এভাবেই ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটকে বিশ্লেষণ করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা সংস্থা সেন্টার অন বাজেট অ্যান্ড পলিসি।  মঙ্গলবার দুপুরে, ভিসি অফিসের সম্মেলন কক্ষে বাজেট বিশ্লেষণ করে সংগঠনটি। 

এসময় বলা হয়, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যে অপ্রতুল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে, যা সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা এবং এসডিজি কাঠামোর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। এছাড়াও ৩২ শতাংশ রাজস্ব প্রবৃদ্ধির যে লক্ষ্য ধরা হয়েছে, তাও অবাস্তব বলে মনে করে সংগঠনটি। 

এর আগে সকালে, আন্তর্জাতিক নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রাইস ওয়াটার হাউজ কুপার্স-ডব্লিউ পিসি বাংলাদেশ ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট বিশ্লেষণ অনুষ্ঠানে বাজেটে অ-নিবাসীদের ওপর করের বোঝা চাপানো এবং স্থানীয় ব্যবসায়ীদের ছাড় দেয়ার চেষ্টা করেছেন অর্থমন্ত্রী বলে মন্তব্য করা হয়।  

প্রতিষ্ঠানটির কার্যালয়ে বাজেট বিশ্লেষণ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ডব্লিউপিসি বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা অংশীদার মামুন রশীদ। তিনি বলেন, প্রস্তাবিত বাজেট কাঠামোর মাধ্যমে রাজস্ব আদায় বাড়ানোর সুযোগ আছে। কিন্তু সেক্ষেত্রে ডিজিটাইজেশন নিশ্চিত করতে হবে।  কর ব্যবস্থনাপনাকে অনলাইনের আওতায় আনার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। 

সামগ্রিক বিশ্লেষণে, বাজেটের প্রশংসা করেছে প্রাইস ওয়াটার হাউজ কুপারস বাংলাদেশ। নতুন করে কোন কর আরোপ না করার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে সংস্থাটি। তাদের মতে এর ফলে, বিদেশী বিনিয়োগ সহজ হবে।