DBC News
১৫-২০ ঘণ্টা অপেক্ষার পর মিলছে টিকিট

১৫-২০ ঘণ্টা অপেক্ষার পর মিলছে টিকিট

আগামী ১৪ই জুন থেকে শুরু হচ্ছে ঈদুল ফিতরের ছুটি। তাই সেদিনের ট্রেনের টিকেটের চাহিদা সবচেয়ে বেশি। তাই আজ কমলাপুর রেলস্টেশনে টিকিট প্রত্যাশীদের ভিড়ও বেশি।

সোমবার ইফতারের পর থেকেই কমলাপুর স্টেশনে ভিড় করতে শুরু করেন ক্রেতারা। সকাল ৮টায় টিকিট বিক্রি শুরু হলেও তার আগেই মানুষের লাইন স্টেশনের বাইরে চলে যায়।

ঈদে ট্রেনের আগাম টিকিট পেতে অপেক্ষা করতে হচ্ছে গড়ে ১৫ থেকে ২০ ঘণ্টা। কাটাতে হচ্ছে নির্ঘুম রাত। বিশ্রামাগার আর টয়লেটের বেহালে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে নারী টিকিট প্রত্যাশীদের। আগাম টিকিট বিক্রির পঞ্চম দিনে আজ দেয়া হচ্ছে ১৪ই জুনের টিকিট।

অন্যদিকে, হাজার হাজার মানুষকে নিয়ন্ত্রণ করতে বেগ পেতে হচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের। কালোবাজারে টিকিট বিক্রি বন্ধ করতে পুরো স্টেশনে রয়েছে কড়া নজরদারি।

কমলাপুর রেল স্টেশনে গিয়ে দেখা গেছে সিনিয়র স্টাফ নার্স ফারজানা আক্তার ঈদের ছুটিতে জয়পুরহাটে বাড়িতে যেতে চান ১৪ই জুন। সোমবার রাত ৯টা থেকেই লাইনে দাঁড়িয়েছেন দু'টি টিকিটের প্রত্যাশায়।

রাজধানীর শনিরআখরা এলাকার বর্ণমালা স্কুলের শিক্ষার্থী এশা তার পরিবারের সঙ্গে ঈদ করতে নীলফামারী যাবেন। তিনিও অপেক্ষায় সন্ধ্যার পর থেকেই। তাকেও টিকিট পেতে অপেক্ষা করতে হবে পনের থেকে বিশ ঘন্টা।

টিকিট পেতে এবার প্রথমবার রাতে লাইনে দাঁড়িয়েছেন ফাতেমা মাজিদ যুঁই। তার অভিযোগ, কমলাপুরে স্টেশনের বিশ্রামাগার আর টয়লেট নিয়ে।

টিকিটপ্রত্যাশী অনেকের সময় কাটছে বন্ধুদের সঙ্গে দাবা, লুডু আর তাস খেলে। তবে নির্ধারিত সময়ে তারা টিকিট পাবেন কি না, এই নিয়েও রয়েছে তাদের শঙ্কা।

এত কষ্টের পরও পরিবারের সঙ্গে ঈদ করার প্রত্যাশার কথাই জানান টিকিট প্রত্যাশীরা।