Headline
UPDATE

লাকী আখান্দের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

1 month ago সংস্কৃতি
লাকী আখান্দের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ লাকী আখান্দের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ
কিংবদন্তি সুরকার, শিল্পী ও মুক্তিযোদ্ধা লাকী আখান্দের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ।

 

নীল মনিহার, যেখানে সীমান্ত তোমার, আমায় ডেকো না, কে বাঁশী বাজায় রে, আবার এলো যে সন্ধ্যা, মামোনিয়া কিংবা পাহাড়ি ঝর্ণার মতো অজস্র কালজয়ী গানের স্রষ্টা তিনি।

  

গানের কথা ও সুরে বরাবরই ছিলেন তিনি অসম্ভব রুচিশীল। অথচ এই শিল্পী জীবনযাপন করতেন খুব অনাড়ম্বরভাবে। ভালোবাসতেন প্রকৃতির সান্নিধ্যে সুরের সন্ধানে বেঁচে থাকতে।

 

১৯৫৬ সালের ৭ই  জুন ঢাকায় জন্ম নেন বাংলা গানে অনবদ্য অবদান রাখা শিল্পী লাকি আখন্দ। 

 

৫ বছর বয়সেই তিনি তার বাবার কাছ থেকে সংগীত বিষয়ে হাতেখড়ি নেন। ১৯৬৩-১৯৬৭ সাল পর্যন্ত টেলিভিশন এবং রেডিওতে শিশুশিল্পী হিসেবে সংগীতবিষয়ক অনুষ্ঠানে অংশ নেন। মাত্র চৌদ্দ বছর বয়সে এইচএমভি পাকিস্তানে সুরকার হিসেবে তালিকাভুক্ত হন লাকী আখান্দ। সুরকার হিসেবে আরো কাজ করেন এইচএমভি ভারত এবং স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রেও।

 

১৯৭১ সালে সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন তিনি। দেশ স্বাধীন করে আবারও বাংলা গান নিয়ে কাজ শুরু করেন। তার নিজের সুর করা গানের সংখ্যা দেড় হাজারেরও বেশি। এদিকে আশির দশকে লাকী আখান্দ সুরকার ও শিল্পী হিসেবে অর্জন করেন আকাশছোঁয়া খ্যাতি। ১৯৮৪ সালে সারগামের ব্যানারে লাকী আখান্দের প্রথম একক অ্যালবাম ‘লাকী আখান্দ’ প্রকাশ পায়। তিনি ব্যান্ড দল হ্যাপি টাচ্‌-এর সদস্য ছিলেন। পরে বাংলাদেশ বেতারের পরিচালক (সংগীত) হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

 

লাকী আখান্দের উল্লেখযোগ্য গানের মধ্যে রয়েছে ‘এই নীল মনিহার’, ‘আমায় ডেকো না’, ‘কবিতা পড়ার প্রহর এসেছে’, ‘যেখানে সীমান্ত তোমার’, ‘মামনিয়া, ‘বিতৃষ্ণা জীবনে আমার’, ‘কি করে বললে তুমি’ ‘লিখতে পারি না কোনও গান, ‘ভালোবেসে চলে যেও না’ প্রভৃতি। শিল্পীর সহোদর ভাই ক্ষণজন্মা হ্যাপী আখান্দের সঙ্গে ছিল তার আত্মার সম্পর্ক। ভাইয়ের মৃত্যুর পর দীর্ঘকাল তিনি নিজেকে গুটিয়ে রেখেছিলেন। অনেক পরে আবারও গানে ফেরেন তিনি।

 

গুণী এই সংগীতজ্ঞ দীর্ঘ সময় ধরেই মরণব্যাধি ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই করছিলেন। ছয় মাসের চিকিৎসা শেষে থাইল্যান্ডের ব্যাংকক থেকে ২০১৬ সালের ২৫শে মার্চ দেশে ফেরেন। সেখানে কেমোথেরাপি নেয়ার পর শারীরিক অবস্থার অনেকটা উন্নতি হয়েছিল তার। একই বছরের জুনে আবারও থেরাপির জন্য ব্যাংকক যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আর্থিক সংকটের কারণে আর সেখানে যাওয়া হয়ে উঠেনি।

 

অসুস্থতার প্রথম থেকেই লাকী আখান্দ ও তার পরিবার কোনোরকম আর্থিক সহযোগিতা গ্রহণ করতে চাননি। দেশের শীর্ষ শিল্পীদের উদ্যোগে সহযোগিতা করতে চাইলেও বিনয়ের সঙ্গে লাকী আখান্দ অনাগ্রহ প্রকাশ করেন। তবে ব্যাংককে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় লাকী আখান্দের চিকিৎসার জন্য পাঁচ লাখ টাকা সহায়তা দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাষ্ট্রীয় ভালোবাসা হিসেবে সেটি তিনি গ্রহণ করেন। পরে ‘শিল্পীর পাশে ফাউন্ডেশন’ থেকেও তার চিকিৎসার জন্য ৪০ লাখ টাকা প্রদান করা হয়।

 

কিন্তু অবশেষে মৃত্যুবরণ করেন এ কিংবদন্তি শিল্পী-সুরকার। বাংলা গানের অমর এই শিল্পী ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় গত বছরের ২১শে এপ্রিল মারা যান।

 

এখনো কান পাতলে যেন শোনা যায় তার সৃষ্ট সেইসব মায়াবী গান। তার গান এখনো নাড়া দেয় শ্রোতার প্রাণে। তার গান এখনও সমান আপ্লুত করে এদেশের মানুষকে।

 

সংস্কৃতি | আরও সংবাদ

 অনুষ্ঠান সূচী

  • সমাধান সূত্র
    সমাধান সূত্র   |   রবি থেকে বৃহস্পতি   |   সকাল ১০ঃ১৫
  • অন্যপক্ষ
    অন্যপক্ষ   |   শুক্র ও শনিবার   |   সকাল ১০ঃ১৫
  • খেলা নিয়ে খেলা
    খেলা নিয়ে খেলা   |   শুক্র ও শনিবার   |   সকাল ১১ঃ১৫
  • টালিখাতা
    টালিখাতা   |   রবি থেকে বৃহস্পতি   |   দুপুর ০১ঃ১৫
  • কর্তার অর্থকথা
    কর্তার অর্থকথা   |   শনিবার   |   দুপুর ০১ঃ১৫
  • কৃষিকথা
    কৃষিকথা   |   শুক্র ও শনিবার   |   বিকাল ০৪ঃ৩০
  • মানচিত্র
    মানচিত্র   |   প্রতিদিন   |   বিকাল ০৫ঃ৩০
  • সংবাদ সম্প্রসারণ
    সংবাদ সম্প্রসারণ   |   প্রতিদিন   |   রাত ০৮ঃ০০
  • রাজকাহন
    রাজকাহন   |   রবি থেকে বৃহস্পতি   |   রাত ১০ঃ০০
  • উপসংহার
    উপসংহার   |   শুক্র ও শনিবার   |   রাত ১০ঃ০০ টা
  • চতুরঙ্গ
    চতুরঙ্গ   |   শনিবার   |   রাত ১১ঃ০০ টা
  • সংস্কৃতি সন্দেশ
    সংস্কৃতি সন্দেশ   |   শুক্রবার   |   রাত ১১ঃ০০